Poor কোয়ালিটির কন্টেন্ট কি? কিভাবে চিনবেন?

আসসালামুয়ালাইকুম, আশা করি সবাই ভাল আছেন। কন্টেন্ট যেমন আপনার ওয়েবসাইট কে জনপ্রিয় বা লাভবান করতে পারে তেমনি poor কোয়ালিটির কন্টেন্ট আপনার ওয়েবসাইটকে অনেক বড়  ক্ষতি করে ফেলতে পারে।   ২০১৪ সালের গুগল পাণ্ডা ৪.১ আপডেটে সবচেয়ে গরুত্ত্ব দেওয়া হয়েছে কোয়ালিটি সম্পন্ন কন্টেন্ট এবং অন পেজ আপ্টিমাইজেশন এর  উপর।  একসময় poor কোয়ালিটির বা low কোয়ালিটির কন্টেন্ট শুধু সেই কন্টেন্ট  কে ক্ষতি করত কিন্তু এখন সম্পুর্ন ওয়েবসাইটের রাঙ্কিং এ ক্ষতি করে। গুগল রাঙ্কিং হারাতে হয়। তাই আজ আপনাদের জানবো কোন  ধরনের কন্টেন্ট আপনার ওয়েবসাইট এর জন্য সমস্যার কারন হয়ে দাড়াতে  পারে।

 

content-marketing-question-ss-1920

১.low কোয়ালিটির কন্টেন্টঃ

low কোয়ালিটির কন্টেন্ট হল এমন কন্টেন্ট যা দ্বারা সার্চ ইঞ্জিন থেকে কোন ধরনের ট্রাফিক বা ভিজিটর আসে না। আসলেও তার পরিমান খুবি কম। এই ধরনের কন্টেন্ট ওয়েবসাইট থেকে ডিলিট করতে হবে।

২. অপ্রয়োজনীয় ইনডেক্স হওয়া পেজ:

গুগল এ যদি এমন কোন পেজ ইনডেক্স হয়ে থাকে যার মধ্যে তেমন কোন তথ্য নাই। যেটা থেকে ভিজিটর তার কাঙ্খিত তথ্য পাবে না । সেই ধরনের পেজকে গুগল poor কন্টেন্ট হিসেবে বিবেচনা করে।  যা গুগল  রাঙ্কিং এ বাঁধা হএয়া দাড়ায়।

৩. ডুপ্লিকেট কন্টেন্টঃ

ডুপ্লিকেট কন্টেন্ট হল এমন একটি কন্টেন্ট যা অন্য কোন ওয়েবসাইট এর পেজ থেকে সংগ্রহীত অথবা মিলে যায়।  এই ধরনের কন্টেন্ট গুগল রাঙ্কিং এর জন্য সমস্যার সৃষ্টি করে। এটি হতে পারে কোন আর্টিকেল , ইমেজ অথবা ভিডিও। তাই এই দিকে সতর্ক থাকতে হবে।

৪.ভুল গ্রামারঃ

অনেকে কন্টেন্টে গ্রামারের ভুল সম্পরকে যত্নশীল হয় না। কিন্তু গুগল এই বাপারে খূবি যত্নশীল। তাই বাক্যের গ্রামারের ভুল করা থেকে বিরত থাকতে হবে। সর্বদা নির্ভুল বাক্য লেখার চেষ্টা করতে হবে।

৫.অত্যাধিক বিজ্ঞাপনঃ

ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন গুগল রাঙ্কিং এ একটি বড় প্রভাব ফেলে। বিজ্ঞাপনের পরিমান যদি বেশি হয় ; বিশেষ করে কোন পোস্টের মাঝে বিজ্ঞাপন দেওয়া হলে সেটা রাঙ্কিংফ ের জন্য বাঁধা।

আশা করি ভাল লেগেছে। যদি আপনারা ইমেজ এসইও সম্পর্কে জানতে চান এই আরটিকাল টি পরতে পারেন (ইমেজ এসইও)

আমার সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে Facebook এ contact করতে পারেন। (Jahangir)

আরো পোস্ট দেখুন

comments