আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছেন? আসুন কয়েকটি ধাপে নিজের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে নিন !!

আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছেন ! তাহলে প্রথমেই ভালবাসুন নিজেকে। নিজেকে জানুন আর ভালবাসুন আর ভয়কে দূর করুন। মানুষ তাঁর জীবনের বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরনের সমস্যার মধ্য পড়েন। কিছু সমস্যা ব্যক্তিকে সম্পূর্ণরূপে বিধধস্ত করে দেয় ফল স্বরূপ, নিজের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলা।

কিন্তু এই সমস্যা গুলিকে মোকাবিলা করে এগিয়ে যাওয়ার নামই তো জীবন। নিজের প্রতি আস্থা ফিরিয়ে আনার কয়েকটি ধাপ –



lost confidence

ইতিবাচক চিন্তা করাঃ

নেতিবাচক চিন্তাগুলো দূর করে ইতিবাচক চিন্তা শুরু করে দিন। খুব সাধারণ একটি কৌশল কিন্তু অসাধারণ কাজের। আপনি যখন কোন কিছু নিয়ে ক্রমাগত চিন্তা করে যাবেন তখন সেটি মনের ভিতর বসে যায়। তাই প্রতিদিন ভোরে সকালে উঠে নিজেকে মোটিভেট করুন, নিজেকে বলুন আপনি পারবেন, পৃথিবীতে কোন কিছু অসম্ভন নয়।তাই আপনিও পারবেন। আপনাকে পারতেই হবে !!!!

অভিনয় করাঃ

আপনি যখন নিজেকে নিয়ে ইতিবাচক চিন্তা শুরু করে দিবেন তখন অনেক কাজ হয়ে যায়। নিজের আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর সবচেয়ে কার্যকর উপায় ইতিবাচ্ক চিন্তার সাথে সেভাবে অভিনয় করা। চিন্তা করা এক জিনিস কিন্তু আপনি যদি সেই সাথে অভিনয় করেন তাহলে সেটা হবে নিজেকে বদলানোর প্রথম ধাপ।

নিজেকে জানতে হবেঃ

যুদ্ধে যাওয়ার আগে একজন বিজ্ঞ জেনারেল সবসময় তার শত্রু সম্পর্কে ভাল করে জেনে নেয়। শত্রু সম্পর্কে ভালো করে না জানলে আপনি তাকে প্রতিহত করতে পারবেন না। আপনি আপনার নেতিবাচক চিন্তা দূর করে তার জায়গায় আত্মবিশ্বাস রিপ্লেস করতে চাইছেন, আর আপনার শত্রু আপনি নিজে । তাই নিজেকে ভালো করে জানুন।

নিজের মনের চিন্তাগুলো শুনতে শুরু করে দিন। নিজের সম্পর্কে একটি জার্নাল লেখা শুরু করে দিন এবং আপনি নিজেকে কি মনে করেন তা লিখুন। এনালাইসিস শুরু করে দিন কেন আপনি নেগেটিভ চিন্তা করছেন। এরপর চিন্তা করুন আপনার কি কি ভালো দিক আছে, আপনি কি কি কাজ ভালো করে করতে পারেন, এবং আপনি কি কি পছন্দ করেন।

এরপর আপনার সীমাবদ্ধতা সম্পর্কে ভাবতে শুরু করুন, এগুলো কি সত্যি কারের সীমাবদ্ধতা নাকি আপনার সৃষ্টি করা কৃত্রিম সীমাবদ্ধতা তা যাচাই করুন।

নিজেকে নিয়ে গভীর ভাবে চিন্তা করুন, এরপর আপনার ভিতর গভীর আত্মবিশ্বাস খুঁজে পাবেন।

একটি ছোট লক্ষ্য নির্ধারণ এবং এটি অর্জন করুনঃ

বেশিরভাগ মানুষ একটি খুব সাধারণ ভুল করে থাকে সেটি হচ্ছে, অনেক বড় লক্ষ্য নির্ধারণ করা। আর এ লক্ষ্য যখন অর্জিত হয়না তখন সে খুব সহজেই ভেঙে পড়ে। প্রথমেই কোন বড় ধরনের লক্ষ্য নির্ধারণ না করে ছোট ছোট লক্ষ্য নির্ধারণ করুন। এমন কিছু করুন যা আপনি সহজেই করতে পারবেন। এরপর কাজটি করুন আর কাজটি সম্পন্ন হলে দেখবেন আপনার ভালো লাগছে। এরপর আরও ছোট ছোট লক্ষ্য নির্ধারণ করুন আর কাজগুলো শেষ করার পর দেখবেন আপনার আরও ভালো লাগছে। এরপর আস্তে আস্তে বড় বড় লক্ষ্য নির্ধারণ করুন আর কাজগুলো শেষ করুন।

সমাধান এর উপর ফোকাস করুনঃ

আপনি যদি সবসময় অভিযোগ করে থাকেন বা শুধু সমস্যাগুলোর উপর ফোকাস করে থাকনে তাহলে দৃষ্টি ভঙ্গি পাল্টে ফেলুন। আপনার ফোকাসকে সমস্যা থেকে সমাধানের উপর জোর দিন। সমস্যার পরিবর্তে সমাধান এর উপর মনোযোগ নিবদ্ধ করে আপনি আপনার আস্থা এবং আপনার কর্মজীবনের জন্য একটি দারুণ কাজ করে থাকবেন। “আমি মোটা ও অলস” কিভাবে এর সমাধান করবেন? “আমি নিজেকে অনুপ্রাণিত করতে পারিনা” এটা কিভাবে সমাধান করবেন? অথবা “আমার কোন শক্তি নেই” এর সমাধান কি?

 হাসুন প্রাণখুলেঃ

এটি একটি খুব সাধারণ টেকনিক, কিন্তু কাজ করে। আমি যখনি হাসি তখনি ভালো বোধ করি। এর সাথে এটি অন্যদের সাথে ভালো ব্যাবহার করতে সাহায্য করে । এর একটা ছোট প্রক্রিয়া আছে ,এটি আপনার শক্তি ও সময়কে খারাপ কাজে বিনিয়োগ থেকে বিরত রাখবে।

জ্ঞানের পরিধি বাড়ানঃ

নিজেকে ক্ষমতায়ন করুন,সাধারণভাবে আত্মবিশ্বাস নির্মাণের জন্য এটি একটি শ্রেষ্ঠ কৌশল। আপনি আপনার আত্মবিশ্বাস বিভিন্ন ভাবে বাড়াতে পারেন, কিন্তু নিজের ক্ষমতা বাড়ানোর সবচেয়ে নিশ্চিত উপায় জ্ঞান অর্জন করা। আপনার যত জ্ঞান বাড়বে ততই আপনার আত্মবিশ্বাস বাড়বে, আর আপনি আপনার জ্ঞান গবেষণা আর ও অধ্যায়নের মাধ্যমে বাড়াতে পারেন। আর এখন আপনি যখন ইচ্ছে ইন্টারনেটের মাধ্যমে নিজের পছন্দ মতো বিষয়ে নিজের ইচ্ছে মতো পড়তে পারেন।

কোন কাজে নিজেকে সক্রিয় করুনঃ

এটি অবশ্যই ঠিক, কিছু না করে থাকার চেয়ে নিজেকে কোন কাজে সক্রিয় রাখা। হয়তো কাজ করতে গিয়ে ভুল হবে, তারপর ও করতে হবে। কারন ভুল করা জীবনের একটি অংশ। এ থেকে আমরা শিখতে পারি। ভুল না করলে আমরা আরও ভালো কিছু করতে পারবোনা। তাই ভুল নিয়ে চিন্তা করবেন না। শুধু কাজ করে যান। চিন্তা না করে শারীরিকভাবে কিছু করুন বা কিছু অর্জন করার জন্য কিছু পদক্ষেপ গ্রহন করুন।



 

আরো পোস্ট দেখুন

comments